✍ পছন্দের চাকরি বা পরীক্ষার নোটিশ খুঁজুন ⇩

বাংলাদেশ হাউজ বিল্ডিং ফাইন্যান্স কর্পোরেশনের MCQ পরীক্ষার প্রশ্ন

Bangladesh House Building Finance Corporation Question 2017
Post : Officer
Exam Taker : Social Science (DU)


ব্যাংকার্স সিলেকশন কমিটির তত্ত্বাবধানে বাংলাদেশ হাউজ বিল্ডিং ফাইন্যান্স কর্পোরেশন এ ‘অফিসার’ পদে সরাসরি নিয়োগের
লক্ষ্যে যোগ্য বিবেচিত প্রার্থীদের ০১ ঘন্টা ব্যাপী ১০০ নম্বরের MCQ Test আজ ১০/১১/২০১৭ তারিখ বিকাল ৩.৩০ টা থেকে ৪.৩০
টা পর্যন্ত ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের মধ্যে অবস্থিত বিভিন্ন কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হয়।
আজকের বাংলাদেশ হাউজ বিল্ডিং ফাইন্যান্স কর্পোরেশনের MCQ পরীক্ষার প্রশ্নের বাংলা সমাধান
১। সর্বভুক শব্দের অর্থ- আগুন
২। নিচের কোন সন বাংলা সাহিত্যের ইতিহাসের নানা কারণে গুরুত্বপূর্ণ-
৩। সমাসবদ্ধ পদ “কাঁচামিঠা” ব্যাসবাক্য- যাহা কাঁচা তাহা মিঠা
৪। নিচের কোনটি বিপরীত শব্দজোর শুদ্ধ নয়? – উত্তম-মধ্যম
৫। Desperate disease requires desperate remedies- এর বাংলা প্রবচন - যেমন কুকুর তেমন মুগুর
৬। কাক ভূষাণ্ডী বাগধারার অর্থ- দীর্ঘজীবী
৭। গেরিলা ও বীরাঙ্গনা কার রচিত_- সেলিনা হোসেন
৮। বাংলাদেশে কাকে সব্যসাচী লেখক বলা হয়? – সৈয়দ শামসুল হক
৯। নিচের কোন বিপরীত শব্দজোড় অশুদ্ধ- আবশ্যিক- আংশিক
১০। বিভিন্ন অর্থে ধারক “duty” শব্দের অর্থ হিসেবে অশুদ্ধ- রুটিন
১১। কিশোর কবি- সুকান্ত ভট্টাচার্য
১২। নিচের কোনটি বিশেষ্য পদ- বৈশিষ্ট্য
১৩। নিচের কোনটি “শৃঙ্গী “ শব্দের সমার্থক- গিরি
১৪। দিবারাত্রি কাব্য একটি- উপন্যাস
১৫। penny wise ,pound foolish এর বাংলা অনুবাদ- বজ্র আটুনি ফস্কা গেরো
১৬। কোন পুরুষবাচক-নারীবাচক অশুদ্ধ- অসীম-অসীমা
১৭। নিচের কোনটি কন্যা শব্দের সমার্থক – আত্মজা
১৮। বিদ্যালয়ের সকল ছেলেরা মাঠে ফুটবল খেলছে -বাক্যে ভুল আছে – বহুবচনের দ্বিত্ব
১৯। শিউলি মালার লেখক কে- কাজী নজরুল ইসলাম
২০। নিচের কোন সন্ধিবিচ্ছেদ শুদ্ধ নয়- পুনর্বন্টন
২১। না প’ড়ে পন্ডিত – প্রবচনটির অর্থ-
২২। যতদিন রবে পদ্মা-মেঘনা-যমুনা বহমান ততদিন রবে কীর্তি তোমার শেখ মুজিবর রহমান – অন্নদাশঙ্কর রায়

২৩। নিচের কোনটি শুদ্ধ- মরুদ্যান
২৪।“ Gratuity” শব্দের বাংলা পরিভাষা-আনুতোষিক
২৫। তিনি কথা দিয়ে কথা রাখতে পারেনি-
কোন ভুল হলে ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দাখবেন।


https://i.imgur.com/nrw1RtT.jpg


https://i.imgur.com/W3AIOu8.jpg

https://i.imgur.com/bIy73o5.jpg
 https://i.imgur.com/Bht8uXM.jpg


হাউজ বিল্ডিং এর নিয়োগ পরীক্ষায় আসছে। সামনে আরও আসবে। সময়-সুযোগ করে বইটা পড়ে নিয়েন। আপাতত রিভিউ।
গেরিলা ও বীরাঙ্গনা
সেলিনা হোসেন
প্রকাশক: প্রথমা প্রকাশন
প্রচ্ছদ ও অলংকরণ: মাসুক হেলাল
২৮০ পৃষ্ঠা, দাম: ৪৫০ টাকা
মুক্তিযুদ্ধ শুরু হওয়ার অব্যবহিত পর অর্থাৎ একাত্তরের ছাব্বিশে মার্চের পর থেকেই এই উপন্যাসের কাহিনির উন্মোচন। পাকিস্তানি সেনাবাহিনী দ্বারা অবরুদ্ধ ঢাকা মহানগরে মুক্তিযোদ্ধাদের বীরদর্পে চালানো অভিযান, পাশাপাশি রাজারবাগ পুলিশ ফাঁড়িতে অত্যাচারিত বীরাঙ্গনাদের অপরিমেয় সাহস ও বীরত্বের আখ্যানের পর আখ্যানকে ধারণ করেই উপন্যাসের কাহিনির বিস্তার।
সত্যিই তো, মুক্তিযুদ্ধ শুরু হয়ে যাওয়ার পর অত্যল্পকালের মধ্যেই ঢাকা মহানগরের বিভিন্ন প্রান্তের এক-একটি বাড়ি হয়ে উঠেছিল, সেলিনা হোসেনের ভাষায়, ‘দুর্গবাড়ি’বিশেষ। সেসব বাড়িতে জমা করা হতো নানা ধরনের মারণাস্ত্র আর গোলাবারুদ। পাশাপাশি এইসব বাড়ি হয়ে উঠেছিল সীমান্ত পাড়ি দিয়ে বাংলাদেশের ভেতরে ঢোকা মুক্তিযোদ্ধা, বিশেষ করে ঢাকা মহানগরের এ-প্রান্ত থেকে ও-প্রান্ত কাঁপানো, পাকিস্তানি সেনাদের বুকে প্রচণ্ড ভীতিসঞ্চারী ক্র্যাক প্ল্যাটুনের সদস্যদের অভয়াশ্রম।
পাকিস্তানি সেনা ও তাদের এ দেশীয় দোসররা তাদের মারণযজ্ঞে যে-রকম সক্রিয়, সেই জীবন-মরণ-সন্ধিক্ষণে তাদের সঙ্গে রীতিমতো পাল্লা দিয়ে বাঙালি জাতি মুক্তি কামনায় যে রকম বেপরোয়া আর উদগ্র হয়ে উঠেছিল, সেলিনা হোসেনের এ বইয়ের প্রতিটি চরিত্র ঠিক সে রকমই বেপরোয়া, কী সংলাপে, কী আচরণে।
লেখককে একটু ব্যতিক্রমই লাগে এই উপন্যাসে এবং সেটা এ কারণে যে, এ গ্রন্থের কোনো চরিত্রকেই তিনি তাদের দুর্বলতা দিয়ে দেখেননি, দেখেছেন তাদের সাহসের সবলতা দিয়ে। ফলে এ উপন্যাসের পাঠ এক অপরিমেয় সাহসের সঙ্গী হওয়ার প্রেরণা জোগায়।
যেমন, রাজারবাগ পুলিশ ফাঁড়িতে আটক দৈহিক ও মানসিকভাবে চরম নির্যাতিত মেয়েদের চরিত্রগুলোকে যখন তিনি আঁকছেন, আঁকছেন তাদের স্থিরসংকল্পসিক্ত মনোভাবসমেত, তাদের দুর্বলতার ছাপ সেখানে ক্ষীণ। তারই পরিণতি দেখি আমরা এভাবে: ‘তৃতীয় দিনে একজন নগ্ন ধর্ষকের পেটে ঢুকে যায় নীলুফারের ছুরি। ওর চিৎকার যখন ঘরের চারদেয়ালে আছড়াতে থাকে, তখন নীলুফার হাসতে হাসতে বলে, এটা আমাদের স্বাধীনতার যুদ্ধ। তোমাদের একটাকে না মেরে আমি এই আজাবখানা থেকে বের হব কেন, কুত্তার বাচ্চারা!’ এই সংলাপ হয়ে ওঠে বীরাঙ্গনাদের তীব্র ঘৃণা, পাশাপাশি তাদের স্বাধীনতাকামী মনোভাবের অজেয়তারই বহিঃপ্রকাশ।
আর দুর্গবাড়ির সেসব সদস্য-সদস্যার কথাও এ উপন্যাসে এসেছে প্রায় সবিস্তারে, বলতে গেলে রক্ত-মাংসসমেত। আকমল হোসেন, তার স্ত্রী আয়শা খাতুন, তাদের মেয়ে মেরিনা, ছেলে মারুফ আর কাজের লোক আলতাফ জীবনের চূড়ান্ত ঝঁুকি নিয়ে যেভাবে মুক্তিযোদ্ধাদের আশ্রয় দেন, তাদের অস্ত্রসম্ভার যেভাবে সুরক্ষিত অবস্থায় রাখেন, মনে তা রীতিমতো রোমাঞ্চ জাগায়। এমনকি মেয়ে মেরিনার যখন পাকিস্তানি সেনাদের হাতে ধরা পড়া নিশ্চিত, এবং মৃত্যু অবধারিত, তখন সে মা আয়শা খাতুনের সামনেই সন্তর্পণে বুকে টাইম বোমা বেঁধে নেয়। এবং ধৃত হয়ে মোটরগাড়িতে করে যাওয়ার সময় তাদের গলিতেই তার বিস্ফোরণ ঘটায়। মেরিনা তো মরেই, মরে তার সঙ্গে থাকা পাকিস্তানি সেনা এবং তাদের এ দেশীয় দোসররাও। মুক্তিযুদ্ধের সময় এভাবেই ঘটেছে এসব ঘটনা। সেলিনা হোসেনও উপন্যাসে তুলে এনেছেন ঠিক সেভাবেই। মুক্তিযুদ্ধে ভীরুতার অবকাশ ছিল না, এ উপন্যাসের কোনো চরিত্রের জীবনেও ভীরুতার লেশ মাত্র নেই।
এই প্রথম ক্র্যাক প্ল্যাটুনের সদস্যদের জীবনবাজি-রাখা অভিযান আর রাজারবাগ পুলিশ ফাঁড়িতে নির্যাতিত নারী তথা বীরাঙ্গনাদের কথা উঠে এসেছে বৃহৎ পরিসরে—এই উপন্যাসের মাধ্যমে। বিয়োগান্ত ঘটনার পর ঘটনার ভেতর দিয়ে এ উপন্যাস শেষ হলেও, স্বাধীনতার আশা জিইয়ে রাখেন সেলিনা হোসেন। এ উপন্যাস যেখানে এবং যেভাবে শেষ হচ্ছে, পাঠান্তে অবধারিতভাবে মনে হয়, এত ত্যাগ বৃথা যেতে পারে না। দেশ স্বাধীন হবেই। এ উপন্যাসের সার্থকতা সেখানেই।
ঝরঝরে গদ্যে লেখা এ উপন্যাস একান্তভাবেই হয়ে উঠেছে সেলিনা হোসেনেরই উপন্যাস। রচনা করেছেন তিনি এক অবিস্মরণীয় ভাষ্যে আমাদের মুক্তিযুদ্ধের এমন এক অধ্যায়ের উপাখ্যান, যার পাঠ এক বিরল অভিজ্ঞতারই অবিচ্ছেদ্য অংশ।

পোস্টটি শেয়ার করুন ...

"Job Circular " Android App

সবার আগে প্রতিদিনের বিভিন্ন পত্রিকা এবং অনলাইনে প্রকাশিত সরকারি-বেসরকারি সব ধরনের চাকরির বিজ্ঞপ্তি, পরীক্ষার নোটিশ ও নিয়োগ প্রস্তুতি নিয়ে এই অ্যাপ।
প্রধান বৈশিষ্ট্য
🔔 "Notification" এর মাধ্যমে আপনি অ্যাপ Open না করেই আপনার মোবাইলের Notification বার এ জানতে পারবেন গুরুত্বপূর্ণ চাকরির খবর এবং পরীক্ষার নোটিশ। বিস্তারিত জানুন
Get it on Google Play

FB Comments
Comments
Disqus
Comments :

Comments