বিসিএস পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁসের আতঙ্কে পিএসসি

http://www.dhakatoday.com/wp-content/uploads/2017/12/dt-proshno-fash-1-330x242.jpg৩৮তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা কাল। প্রশ্নফাঁসের আতঙ্কে রয়েছে বাংলাদেশ পাবলিক সার্ভিস কমিশন- পিএসসি। এজন্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীসহ গোয়েন্দা সংস্থাগুলোকে কঠোর নজরদারি করতে চিঠি দিয়েছে পিএসসি। পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে প্রস্তুতিমূলক কাজের অংশ হিসেবই এসব করা হয়েছে বলে জানিয়েছে কমিশন।

চলতি বছর এসএসসি,এইচএসসিসহ সকল বোর্ড পরীক্ষার বেশ কিছু প্রশ্ন ফাঁস হয়েছে। সেই সাথে সরকারি ব্যাংক ও অন্যান্য চাকরির পরীক্ষারও প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগ রয়েছে।

এ অবস্থায় কাল শুক্রবার সকাল ১০টা থেকে ১২টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হবে ৩৮তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা। এই পরীক্ষায় এবার ৩ লাখ ৪৬ হাজার ৫৩২ জন প্রার্থী অংশ নিবে। যা রেকর্ডসংখ্যক।

এই পরীক্ষার প্রশ্নফাঁস ঠেকাতে নানা ধরনের প্রস্তুতি নিচ্ছে কমিশন। গোয়েন্দা সংস্থাগুলো এ জন্য পরীক্ষার আগের দিন ও রাতে কঠোর নজরদারি করবে।

পিএসসি বলছে, অনেকগুলো সেটের প্রশ্নপত্র করা হয়েছে। এবারই প্রথম বাংলা এবং ইংরেজি মাধ্যমে প্রশ্ন
করা হয়েছে।

এদিকে বিশ্লেষকরা বলছেন, প্রশ্নফাঁসের যে সংস্কৃতি শুরু হয়েছে তাতে যে কোন পরীক্ষার আগে সবার মধ্যেই আতঙ্কিত পরিবেশের সৃষ্টি হয়।

সবশেষ ২০১২ সালে ৩৩ তম বিসিএসের লিখিত পরীক্ষার প্রশ্নফাঁস হয়েছিল। সে সময় নির্দিষ্ট দিনে পরীক্ষা স্থগিত করে পরে ওই পরীক্ষা নেয়া হয়।

Source: http://independent24.com/details/23264
আপডেটঃ ডিসেম্বর ২৮, ২০১৭ ০৭:১৫

http://paimages.prothom-alo.com/contents/cache/images/640x360x1/uploads/media/2017/12/20/2e593211662f78c11de09a52fb703ee7-5a39d9d429e62.jpg?jadewits_media_id=1105621প্রথম শ্রেণি থেকে শুরু করে প্রায় সব প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় নিয়মিত প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনা ঘটছে। এ ছাড়া বিভিন্ন নিয়োগ পরীক্ষায়ও উঠেছে প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগ। প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনায় খোদ শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদও অসহায়ত্ব প্রকাশ করেছেন। সাম্প্রতিক সময়গুলোতে দেখা গেছে, প্রশ্নপত্র ফাঁস করেছেন প্রেসের কর্মচারীরা। এরূপ পরিস্থিতির মধ্যে চলতি মাসের শেষ দিকে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ৩৮তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা।

এই প্রশ্ন ফাঁসের আতঙ্কে আছে সরকারি কর্মকমিশন (পিএসসি)। তাই ৩৮তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষাকে সামনে রেখে ব্যাপক প্রস্তুতি নিচ্ছে পিএসসি। এবারের এই বিসিএসে রেকর্ড–সংখ্যক চাকরিপ্রার্থী পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছেন। পিএসসি চাইছে এই পরীক্ষায় যাতে কোনোভাবেই প্রশ্ন ফাঁস না হয়। ২৯ ডিসেম্বর এই পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।
পিএসসি সূত্র জানায়, এ বছর ৩৮তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় অংশ নিতে ৩ লাখ ৪৬ হাজার ৫৩২ জন প্রার্থী আবেদন করেছেন। এর আগে ৩৭তম বিসিএসে অংশ নেন ২ লাখ ৪৩ হাজার ৪৭৬ জন পরীক্ষার্থী। এর আগে সেটিই ছিল বিসিএসে সবচেয়ে বেশি প্রার্থীর আবেদন।
পিএসসির একাধিক সূত্র জানায়, প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় যাতে প্রশ্ন ফাঁস না হয়, সে জন্য বেশ কয়েক সেট পরীক্ষার প্রশ্নপত্র তৈরি করা হচ্ছে। এ ছাড়া দেশের পরীক্ষার প্রতিটি কেন্দ্রে পিএসসি নিজস্ব টাকায় দুটি করে মেটাল ডিটেক্টর সরবরাহ করছে এবং প্রতিটি পরীক্ষার হলে একটি করে ঘড়ি দিচ্ছে সংস্থাটি। একইসঙ্গে পরীক্ষাসংশ্লিষ্ট প্রতিটি প্রতিষ্ঠান বা সংস্থার সদস্যদের সঙ্গে আলাদা করে বিশেষ বৈঠক করা শুরু করেছে পিএসসি।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে পিএসসির চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাদিক প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমরা সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে ৩৮তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা নিচ্ছি। এরই মধ্যে পরীক্ষাসংশ্লিষ্ট প্রতিটি কমিটির সদস্যদের সঙ্গে আলোচনা করছি, কীভাবে সুষ্ঠুভাবে পরীক্ষা নেওয়া যায় ও পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁস না হয়। এ ছাড়া বিভিন্ন নিয়োগ পরীক্ষায় জালিয়াতির মাধ্যমে যারা প্রশ্ন ফাঁস করেছে তাদের কীভাবে ধরা যায়, সে–সংক্রান্ত অভিজ্ঞতা ও জ্ঞানও নেওয়া হচ্ছে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের কাছ থেকে।’ তিনি আরও বলেন, ‘এবারই যেহেতু সবচেয়ে বেশি পরীক্ষার্থী এই পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছেন, তাই আমরা অনেক বেশি সতর্ক আছি যাতে কোনোভাবে কোনো ধরনের অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা না ঘটে।’
পিএসসি সূত্র জানায়, এই সপ্তাহে গোয়েন্দা সংস্থা, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, হলপ্রধান, হল পরিদর্শক, পিএসসির কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ বিভিন্ন পর্যায়ের ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান, যাঁরা পরীক্ষার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট, তাঁদের সঙ্গে বৈঠক করবে পিএসসি। ডিজিটাল পদ্ধতিতে কীভাবে প্রশ্ন ফাঁস হতে পারে ও তা কীভাবে ঠেকানো যায়, তার প্রস্তুতি পিএসসি নিচ্ছে বলে জানায় ওই সূত্র।
সর্বশেষ পিএসসির সিনিয়র স্টাফ নার্স পরীক্ষা নেওয়ার সময় পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁস হয়। পরে সত্যতা যাচাই করে প্রশ্ন ফাঁসের প্রমাণ মেলায় দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করে পিএসসি। ওই পরীক্ষা বাতিল করা হয়।
৩৮তম বিসিএসের লিখিত পরীক্ষার প্রতিটি খাতা দুজন পরীক্ষক মূল্যায়ন করবেন। তাঁদের নম্বরের ব্যবধান ২০ শতাংশের বেশি হলে তৃতীয় পরীক্ষকের কাছে খাতা পাঠানো হবে। এর ফলে পরীক্ষার্থীদের মেধা যথাযথভাবে মূল্যায়িত হবে বলে মনে করছে পিএসসি।
এই বিসিএস থেকে বাংলাদেশ বিষয়াবলির ২০০ নম্বরের লিখিত পরীক্ষায় আলাদা করে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ে ৫০ নম্বরের প্রশ্ন রাখা হবে। কেউ চাইলে ইংরেজিতেও এই বিসিএস দিতে পারবেন। সাত বিভাগের পাশাপাশি এবার নতুন বিভাগ ময়মনসিংহেও পরীক্ষা নেওয়া হবে।
  

পোস্টটি শেয়ার করুন ...

"Job Circular " Android App

সবার আগে প্রতিদিনের বিভিন্ন পত্রিকা এবং অনলাইনে প্রকাশিত সরকারি-বেসরকারি সব ধরনের চাকরির বিজ্ঞপ্তি, পরীক্ষার নোটিশ ও নিয়োগ প্রস্তুতি নিয়ে এই অ্যাপ।
প্রধান বৈশিষ্ট্য
🔔 "Notification" এর মাধ্যমে আপনি অ্যাপ Open না করেই আপনার মোবাইলের Notification বার এ জানতে পারবেন গুরুত্বপূর্ণ চাকরির খবর এবং পরীক্ষার নোটিশ। বিস্তারিত জানুন
Get it on Google Play

FB Comments
Comments
Disqus
Comments :

Comments